1. admin@desherkatha.com : admin :
  2. manikpress076@gmail.com : দেশের কথা : দেশের কথা
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
লৌহজংয়ে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধন ঝড় বৃষ্টি ঠেলে বিএম শোয়েবের নির্বাচনী জনসভায় জনসমুদ্র লৌহজংয়ে গাঁওদিয়া মারধর ঘটনা মামলায় গ্রেফতার এক বিএম শোয়েবের সমর্থনে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভা অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা সৌদি থেকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন গাঁওদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম লৌহজংয়ে শ্রমিক লীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিল নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টিতে সাংবাদিকদের সহযোগিতা চাইলেন বিএম শোয়েব শহীদ ও যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সংবর্ধনা লৌহজংয়ের মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা

প্রথমবার ঢাকা-ভাঙা ট্রেন চলাচল ঘিরে পদ্মা পাড়ে উচ্ছাস

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৪২৫ বার পঠিত
প্রথমবারের মত ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে দক্ষিণবঙ্গে চলাচল করতে চলেছে পরীক্ষামূলক ট্রেন। এরমধ্যেই পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পে ঢাকা-ভাঙা অংশের ৮২ কিলোমিটার রেলপথ ট্রেন চলার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত করেছে সংশ্লিষ্টরা। বৃহস্পতিবার সকালে ১০ টা ১০ মিনিটের দিকে রাজধানীর কমলাপুর স্টেশন থেকে ছাড়া হয়েছে পরিক্ষমূলক ট্রেনটি। মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে মাওয়া প্রান্ত হয়ে পথে পারি দিবে প্রমত্তা পদ্মা। পরীক্ষামূলক ট্রেনে প্রকল্প পরিদর্শন করবেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন সহ সংশ্লিষ্টদের।
এদিকে সড়ক পথের পর রেলপ্রকল্পের কাজের অগ্রগতিতে উচ্ছস্বিত সকলে। উচ্ছাস বিরাজ করছে মুন্সীগঞ্জসহ পদ্মা পাড়ে।
মাওয়া স্টেশনের সংশ্লিষ্ট ও স্থানীয়রা জানায়, পরীক্ষামূলক রেল চলাচলের মাধ্যমে এই রেলপথের আরেক ধাপ এগিয়ে গেল। রেল চলাচলের মাধ্যমে এপথে যাতায়াত সহজ থেকে সহজতর হতে চলেছে।
মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের নিতাই দাস জানান, সড়ক পথের পর এবার পদ্মা সেতুতে হয়ে ঢাকা থেকে  ট্রেন চলাচল করবে। আমরা এই বিষয়টি নিয়ে খুবই আশাবাদী ছিলাম। শ্রীনগর থেকেও ট্রেনে করে আমরা ঢাকায় যেতে আসতে পারবো আমাদের ঝক্কি ঝামেলা কম হবে ,ভাড়াও সাশ্রয়ী হবে।
লৌহজং এলাকার মিজানুর রহমান ঝিলু বলেন, পদ্মা সেতুর সাথে সাথে এ রেললাইন আমরা নির্মাণ হতে দেখেছি আশায় ছিলাম কবে নাগাদ এ রেলপথের ট্রেন চলাচল করবে। আজকের স্বপ্নপূরণের আরো একটি দ্বারপ্রান্তে এসে পৌঁছেছে। সড়ক পথে গাড়ি চলবে রেলপথের রেল। এতে সহজে পদ্মা সেতু পাড়ি দিবে দক্ষিণবঙ্গে যাবে ঢাকায় যাওয়া আসা করবে। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ থেকে সহজতর হলো।
প্রকল্পের ট্রাক ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ শওকত আলী জানান, সর্বোচ্চ আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই রেলপথ নির্মাণ করা হয়েছে। উন্নতি যত প্রযুক্তি রয়েছে সবগুলোই এই রেলপথে ব্যবহার করা হয়েছে। দেশের সবচেয়ে বড় রেল ভায়াডাক্ট এ পথে নির্মাণ করা হয়েছে। এতে করে রেল লাইন হয়ে হয়েছে সুপার ট্রাক। ১২০ কিলোমিটার গতিতে এ রেলপথের রেলগাড়ি চলাচল করতে পারবে। অসাধারণ একটি কাজ হয়েছে এ প্রকল্পে যুক্ত থাকতে পেরে খুব ভালো লাগছে। সবাই আনন্দিত।
প্রকল্পের এক শ্রমিক জানায়, গত দুই বছর ধরে এ প্রকল্পে কাজ করছি। কবে ট্রেন চলবে সেটি দেখার অপেক্ষায় ছিলাম। আজকে আমাদের একটি আনন্দ ঘন দিন।
কলেজ ছাত্র জহির আমিন জানান, আজকে পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচল করবে এরপর দশে অক্টোবর পুরোপুরি চালু হবে। এই পথে সহজে সবাই যাতায়াত করতে পারবে এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ।
স্থানীয় আরো কয়েকজন জানান, মুন্সীগঞ্জে আগে কোন রেলপথ ছিল না। স্বাধীনতার অর্ধশতবর্ষে রাজধানীর পাশের জেলা হলেও ঢাকার সাথে কোন রেল যোগাযোগ ছিল না। আজি প্রথমবারের মতো ট্রেন ঢাকা থেকে মুন্সীগঞ্জে আসছে যেটি একটি বড় আনন্দের বিষয়।
প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানায়, স্বপ্নের পদ্মা সেতু পারি দিয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সফল ট্রেন চলাচল করেছে গত ৪ এপ্রিল। ৫ মাসের মাথা এবার পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পের ঢাকা থেকে ভাঙ্গা অংশের ৮২ কিলোমিটার প্রথমবারের মত চললো পরীক্ষামূলক ট্রেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে এবং দেশি-বিদেশি প্রকৌশলী ও শ্রমিকদের সমন্বয়ে কাজ সম্পূর্ন হয়েছে গুণগত মান বজায় রেখে।
প্রকল্পের প্রকৌশলী সাদমান শাহরিয়ার জানান, ঢাকা থেকে ভাঙ্গা অংশের ৮২ কিলোমিটার পথে মাওয়া, পদ্মা, ভাঙাসহ মোট দশটি স্টেশন রয়েছে। সবগুলোরই প্রায় ৯০ শতাংশের অধিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে এরমধ্যে। মুন্সীগঞ্জ অংশের নিমতলী, শ্রীনগর ও মাওয়াতে রয়েছে ৩ টি আধুনিক স্টেশন। এগুলোর অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শেষ।
পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পে ব্যবস্থাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহমেদ জামিউল ইসলাম বলেন, সর্বোচ্চ আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রকল্পটির কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। রেল চলাচলের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে দেশের সবচেয়ে বড় রেলওয়ে ভায়াডাক্ট। পরীক্ষামূলক চলাচলের জন্য আনা হয়েছে নতুন লোকমোটিভ।
পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক-১ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ জানান, ঢাকা থেকে মাওয়ার অংশে দূরত্ব প্রায় ৪০ কিলোমিটার। ঢাকার কমলাপুর থেকে রওনা হয়ে পরীক্ষামূলক ট্রেনটি প্রথমে মাওয়া স্টেশন দিয়ে পদ্মা সেতুর পারি দেয়। সময় সল্পতার কারণে মাওয়া স্টেশন পরিদর্শন করা হয়নি। যদি পরিদর্শনের তালিকায় ছিলো মাওয়া স্টেশনটি। ১১ টা ২৩ মিনিটে মাওয়া থেকে পদ্মা সেতু হয়ে ৪২ কিলোমিটার পথ পারি দিয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা অংশে পৌঁছায় ট্রেনটি। ৮ মিনিট সময় লাগে পদ্মা সেতু পারি দিতে। পরে ভাঙ্গা থেকে সরাসরি ট্রেনটি কমলাপুর স্টেশনে ফিরে যাবে।
সংশ্লিষ্টরা জানায়, প্রকল্পের ঢাকা থেকে ১৭২ কিলোমিটার রেলপথ চালু হবে আগামী বছর। আর পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচল সফল হওয়ায় আগামী মাসের ১০ অক্টোবর যাত্রী চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া ঢাকা-ভাঙা অংশের রেলপথটি। উদ্ধোধন করবেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও খবর